টাফনিল কোন রোগের ঔষধ বিস্তারিত জানুন - টাফনিল ২০০ এর দাম কত - টাফনিল খেলে কি ঘুম হয়

জিম্যাক্স ৫০০ এর কাজ কিপ্রিয় পাঠক, আপনারা হয়তো জানতে চেয়েছেন টাফনিল কোন রোগের ওষুধ এবং টাফনিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে। টাফনিল ট্যাবলেটটি এসকেএফ ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেড কোম্পানি বাজারজাত করে থাকে। টাফনিল মূলত মাইগ্রেনের একটি ওষুধ। যা সচরাচর প্রত্যেকটা মানুষেরই প্রয়োজনীয় একটা ঔষধ। টাফনিল খাওয়ার সঠিক নিয়ম, এর দাম ও এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।
টাফনিল কোন রোগের ঔষধ বিস্তারিত জানুন
আজকের এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন আশা করি উপকৃত হবেন। এই ওষুধের জেনেরিক নাম হলো টলফেনামিক এসিড। এটিতে ২০০ মিলিগ্রাম টলফেনামিক এসিড রয়েছে। বাজারে এটি শুধুমাত্র ট্যাবলেট আকারেই পাওয়া যায় সিরাপ আকারে পাওয়া যায় না। তবে চলুন অযথা কথা না বাড়িয়ে নিচে আমরা বিস্তারিত জেনে আসি।

টাফনিল কোন রোগের ঔষধ

টাফনিল কোন রোগের ঔষধ বিস্তারিত জানুন
টাফনিল হলো -- এটি মাইগ্রেন আক্রমণের চিকিৎসায় ডাক্তারের প্রতিটি প্রেসক্রিপশন এর লিখিত সর্বাধিক ব্যবহৃত একটি ওষুধ। টাফনিল আপনার সব রকম মাথা ব্যথার অবসান ঘটাতে সাহয্য করে থাকে। প্রতি টেবলেটে রয়েছে "টোফেনামিক এসিড ২০০ এমঃজি। এটি গ্রহণের ১০ - ২০ মিনিটের মধ্যে মাথা ব্যাথার পরিমান অর্ধেকে নামিয়ে নিয়ে আসে। ৩০ বা ৪০ মিনিট পর ব্যাথা ৯০ শতাংশ কমিয়ে আনবে। 

শুধু মাথা না, শরীর ব্যাথা, দূর্বলতা ও বমিভাব কমিয়ে আনবে। এটি খুব হাই ডোজের একটি ওষুধ তাই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া খাওয়া উচিৎ না। পরিশেষে বলতে চায় টাফনিল ট্যাবলোট হল বিশেষভানে মাইগ্রেন জনিত মাথাব্যথা, পােস্ট-অপারেটিভ ব্যথা, বেদনানাশক ও জ্বরে বেদনানাশক কাজে নির্দেশিত। টাফনিল এইসব রোগের ঔষধ তবে চলুন টাফনিল খাওয়ার নিয়ম তা নিচে জেনে নিয়।

টাফনিল ট্যাবলেট খাওয়ার নিয়ম

আপনি একটি ঔষধ খাবেন কিন্তু আপনার শরীরের অবস্থা কেমন এবং আপনার ওজন কতটুকু তার ওপর নির্ভর করে এই ঔষধ এর পরিমাপ আপনাকে ঠিক করে দেবে ডাক্তার। এছাড়াও যে সকল রোগীরা অনেক শিশু অর্থাৎ বাচ্চা তাদের ক্ষেত্রেও কি পরিমাণ ওষুধ খেতে হবে। সেই বিষয়টি অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে আপনাদের যাচাই-বাছাই করতে হবে। তাহলে চলুন জানার চেষ্টা করি টাফনিল খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে।

যাদের অতিরিক্ত মাইগ্রেনের কারনে মাথাব্যথা হয় তারা এই টাফনিল ২০০ মি,গ্রা সেবন করতে পারেন। কিন্তু সেবনের ১ থেকে ২ ঘন্টা পরদেখবেন আপনার মাথা ব্যাথা কিছুটা কমছে এমনকি ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী গ্রহন করবে। এমনকি যদি হালকা মাথা ব্যথা অনুভব হয়। তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী দিনে তিনবার ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু ওষুধের পরিমাণ হবে ১০০ মি,গ্রা এই ওষুধ বাচ্চাদের সেবন করা যাবে না। যেহেতু এই ওষুধটি ব্যাথা নাশক, তাই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী গ্রহণ করাটা উত্তম হবে ।

টাকনিল ও এরেনুম্যাব নামের এই ইনজেকশন কি কাজ করে

মাইগ্রেন চিকিৎসায় নতুন এক ঔষধ আবিস্কার করে সেটিকে ভিন্ন মাত্রা হিসেবে বর্ণনা করছেন গবেষকরা। কয়েক দশকে এই প্রথম কার্যকরী ঔষধ আসছে বলে বলা হচ্ছে। গবেষকরা বলছেন, মাইগ্রেন বা দীর্ঘ সময়ের মাথা ব্যথা সারাতে অন্য সব ঔষধ বা চিকিৎসা যখন ব্যর্থ হবে। তখন এই নতুন ঔষধ কাজ করবে। নতুন এই ঔষধটি হচ্ছে ইনজেকশন। 

মাসে একবার এই ইনজেকশন নেয়া যাবে। এর নাম দেয়া হয়েছে এরেনুম্যাব। গবেষকরা বলেছেন। এই ঔষধ গুরুতর মাইগ্রেন আক্রান্ত এক তৃতীয়াংশ মানুষকে সাহায্য করবে। এতদিন চার ধরনের চিকিৎসা রয়েছে। তাতে অস্বস্তিকর মাথা ব্যথার নিরসন হচ্ছে। সেখানে নতুন এই ঔষধ কাজ করবে বলে গবেষকরা ধারণা করছেন।

নতুন এই ঔষধ কিভাবে কাজ করবে? একজন মাইগ্রেন রোগী মাসে যতবার এই রোগে আক্রান্ত হন, নতুন ঔষধ ব্যবহারে আক্রান্তের সেই হার অর্ধেকে নেমে আসবে। এরেনুম্যাব নামের এই ইনজেকশন মাইগ্র্রেনের অন্যান্য ঔষধ থেকে ভিন্নভাবে কাজ করবে। এটি উচ্চ রক্তচাপের মতো রোগে আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রেও মাইগ্রেনের জন্য ব্যবহার করা যাবে। এটি মাইগ্রেন প্রতিরোধক হিসেবেও কাজ করবে।

টাফনিল খেলে কি ঘুম হয়

ঘুমের কারণ --
  • ব্যথার উপশম -- টাফনিল ব্যথা উপশম করে, যার ফলে ঘুমাতে সুবিধা হয়।
  • অন্যান্য কারণ -- টাফনিলের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, যেমন মাথা ঘোরা, ক্লান্তি, এবং দুর্বলতা, ঘুমের কারণ হতে পারে। 
  • টাইরামিনের ঘাটতি -- টাফনিল শরীরে টাইরামিনের ঘাটতি তৈরি করতে পারে, যা সেরোটোনিন নামক ঘুমের হরমোনের উৎপাদন বৃদ্ধি করে।
সাধারণত বিভিন্ন ধরনের ঔষধ রয়েছে যেগুলো খেলে সাধারণভাবে মানুষের ঘুম হয়। তবে টাফলিন জি যে ঘুমের ঔষধ নয় ফলে যে কোন রোগের সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে তা আপনি খেলে ঘুম হয় এরকম নয়। অর্থাৎ টাফনিল কোন ঘুমের ঔষধ নয় ফলে টাফনিল খেলে ঘুম হয় না।

টাফনিল বেশি খেলে কি হয়

টাফনিল একটি ব্যথানাশক ওষুধ যা মাথাব্যথা, টেনশন হেডেক, মাইগ্রেন, দাঁতের ব্যথা, ঋতুস্রাবের ব্যথা, এবং জ্বরের জন্য ব্যবহার করা হয়। এটি একটি নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ড্রাগ (NSAID) যা প্রদাহ এবং ব্যথা কমাতে কাজ করে। টাফনিল খেলে কিছু সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে --
  • ক্লান্তি
  • .কাঁপুনি
  • ডায়রিয়া
  • মাথাব্যথা
  • মাথা ঘোরা
  • .ক্ষুধামন্দা
  • পেট খারাপ
  • উচ্চ রক্তচাপ
  • বমি বমি ভাব
  • শিহরণ সমস্যা,
  • শ্বাসপ্রণালীর সমস্যা
  • অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া
কিছু ক্ষেত্রে, টাফনিল গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও হতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে --
  • স্ট্রোক
  • হার্ট অ্যাটাক
  • কিডনির ক্ষতি
  • পেটের আলসার
  • অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া
  • টাফনিল খাওয়ার আগে,
  • গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল রক্তপাত
আপনার যদি কোন সমস্যার কারণে টাফনিল খাওয়ার প্রয়োজন পড়ে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করবেন। ডাক্তার যদি খাওয়ার জন্য পরামর্শ দেয় তাহলেই আপনি খাবেন। অন্যথায় টাফনিল খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। গর্ভবতী মহিলার জন্য টাফনিল খাওয়া একেবারেই নিষেধ কারণ গর্ভ অবস্থায় টাফনিল খেলে গর্ভে থাকা বাচ্চা এবং গর্ভবতী মা উভয়ের শরীরের জন্য তা ক্ষতিকর হবে। 

কোন ডাক্তারি গর্ভ অবস্থায় কোন মহিলাকে টাফনিল খাওয়ার জন্য পরামর্শ দেয় না। উক্ত পোস্টের মাধ্যমে আমরা আপনাদেরকে টাফনিল ঔষধটি বেশি খেলে কি হয় সেই সম্পর্কে  উপরে বিস্তারিত তথ্য আলোচনা করে জানানোর চেষ্টা করেছি।

টাফনিল খেলে কি ক্ষতি হয়

শুধু টাফনিল নয় কোন ওষুধে অতিরিক্ত পরিমাণে বা স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি খাওয়া উচিত নয়।আপনি যখন কোন ওষুধ পরিমাপের তুলনায় বেশি খাবেন তখন তা আপনার শরীরের জন্য উপকারের পরিবর্তে অপকারিতা গুলা বয়ে নিয়ে আসবে। টাফনিল ওষুধও এর ব্যতিক্রম নয়। টাফনিল ওষুধ সুস্থতার জন্য যখন আপনি তা বেশি পরিমাণে খেতে থাকবেন।

তখন আপনার শরীর আস্তে আস্তে অসুস্থ হতে থাকবে। টাফনিল বেশি খাওয়ার ফলে সব সময় মাথার মধ্যে ব্যথা অনুভব হবে এবং মাথা ঝিমঝিম করবে। টাফনিল মানুষ কখনো ইচ্ছে করে খায় না। যখন মানুষ অসুস্থতায় ভোগে এবং মাইগ্রেনের সমস্যা বেড়ে যায় তখনই মানুষ টাফনিল খায়। টাফনিল খাওয়ার কারণে মাথাব্যথা খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে কমে যায়। নিয়মিত টাফনিল খাওয়ার ফলে শরীর আস্তে আস্তে দুর্বল হতে থাকে। 

এছাড়াও যখন অতিরিক্ত মাত্রায় টাফনিল খাওয়া হবে বা একসাথে অনেকগুলো টাফনিল ট্যাবলেট খাওয়া হবে। তখনই তার শরীরের জন্য ক্ষতিকর দিক বয়ে নিয়ে আসে। একসাথে অনেকগুলো টাফনিল ট্যাবলেট খেলে মাথাব্যথা ভালো হওয়ার পরিবর্তে মাথাব্যথা আরো বেশি বেড়ে যাবে। মাথার মধ্যে ঝিম ঝিম ভাব তৈরি হয়। শরীল অনেক বেশি ক্লান্ত ও দুর্বল মনে হবে। 

আরো পড়ুনঃ Biltin 20 mg এর কাজ
ডায়রিয়া বা পাতলা পায়খানা হওয়ার মতো সম্ভাবনা থাকে। অকারণে বমি বমি ভাব হবে। ঘুমের পরিমাণ অনেক বেশি বেড়ে যাবে। যদি এলার্জি সমস্যা থাকে তাহলে অ্যালার্জি আরো বেড়ে যাবে। শরীরের ভিতরে খিচুনি তৈরি হতে পারে। নাক মুখ দিয়ে রক্তপাত হতে পারে। টাফনিলের ক্ষতিকর দিকগুলো থেকে বেঁচে থাকতে কখনো একসাথে অনেকগুলো টাফনিল খাবেন না।

ডাক্তার যে কয়টি করে প্রতিদিন খেতে বলে সে কয়টি নিয়ম করে খাবেন। তাহলে আপনি টাফনিলের দ্বারা মাথাব্যথা কমাতে পারবেন। টাফনিল খাওয়ার পাশাপাশি আপনাকে অবশ্যই ভালো মন্দ খাবার খেতে হবে কারণ টাফনের খাওয়ার কারণে মানুষের শরীর আস্তে আস্তে দুর্বল হতে থাকে। যদি আপনি ঠিকমতো খাবার না খান তাহলে শরীর আরো দুর্বল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

টাফনিল খেলে কি হয়

টাফনিল একটি অ্যানালজেসিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ওষুধ যা ব্যথা, জ্বর এবং প্রদাহ কমাতে ব্যবহৃত হয়। এটি সাধারণত মাথাব্যথা, মাইগ্রেন, দাঁতের ব্যথা, পেশী ব্যথা, ঋতুস্রাবের ব্যথা এবং জ্বরের জন্য ব্যবহৃত হয়।
টাফনিলের কিছু সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হল --
  • ক্লান্তি
  • ডায়রিয়া
  • মাথাব্যথা
  • মাথা ঘোরা
  • পেট খারাপ
  • বমি বমি ভাব
টাফনিল গর্ভবতী বা স্তন্যদানকারী মহিলাদের, কিডনির সমস্যা ব্যক্তিদের এবং অ্যালার্জির ইতিহাস ব্যক্তিদের দ্বারা ব্যবহার করা উচিত নয়। টাফনিল খাওয়ার আগে, আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে যদি আপনি অন্য কোনও ওষুধ খাচ্ছেন বা আপনার কোনও চিকিৎসা শর্ত থাকে।

টাফনিল খেলে কী হতে পারে তার কিছু নির্দিষ্ট উদাহরণ --
  • জ্বর কমাতে পারে -- টাফনিল জ্বর কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  • মাথাব্যথা কমাতে পারে -- টাফনিল মাথাব্যথার ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে। এটি মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতেও কার্যকর হতে পারে।
  • প্রদাহ কমাতে পারে -- টাফনিল প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে। এটি পেশী ব্যথা, ঋতুস্রাবের ব্যথা এবং অন্যান্য প্রদাহজনিত অবস্থার ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

টাফনিল ট্যাবলেট এর দাম কত

২০০ মিঃগ্রাঃ প্রতিটি টাফনিল ট্যাবলেট এর মূল্য মাত্র ১০ টাকা। প্রতি পাতা ট্যাবলেট এর মূল্য ১০০ টাকা মাত্র। প্রতি বক্স ওষুধের মূল্য ৬০০ টাকা মাত্র। এই ওষুধের মূল্য যে কোন সময় পরিবর্তন হতে পারে। আপনি আপনার হাতের নাগালের যেকোনো ফার্মেসি থেকে এই ট্যাবলেট ক্রয় করতে পারবেন।

টাফনিল ২০০ এর কাজ কি

তীব্র মাথায় ব্যথায় অর্থাৎ মাইগ্রেনের সমস্যা, হালকা মধ্যম ব্যথায়, বৃক্কের সমস্যায় এছাড়াও শরীরে ফোলা ব্যথা এবং গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ব্যথাকে নিরাময় করতে টাফনিল এর কার্যকারিতা ব্যাপকভাবে পরিচিত। অতঃপর টোফেনানিক এসিড বিশেষভাবে মাইগ্রেন জনিত মাথাব্যথায়। এমনকি জ্বরের বেদনাশক হিসেবে এ টাফনিল ২০০ এর ব্যাপক কার্যকারিতা লক্ষ্য করা যায়। 

আরো পড়ুনঃ Riboflavin এর কাজ কি
অতএব টাফনিল এর কাজ কি এবং এর দাম কত ও খাওয়ার নিয়ম সহ বিস্তারিত তথ্য জানতে নিচে প্রবেশ করুন। আর এই ওষুধটি হচ্ছে টলফেনামিক এসিড এম ফেনামেট গ্রুপ এর সদস্য এবং এটি সাইকো-অক্সিজিনেজ এনজাইমের শক্তিশালী নিরোধক হিসেবে কাজ করে থাকে।

টাফনিল কি অ্যান্টিবায়োটিক

উত্তর হচ্ছে না, এটি কোন এন্টিবায়োটিক ওষুধ নয়। এটি একটি ব্যথা নাশক ঔষধ। কিন্তু অনেকেই এদিকে এন্টিবায়োটিক ঔষধ হিসেবে মনে করে থাকেন। শরীরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যথা,মাইগ্রেন জনিত ব্যথা ইত্যাদি ব্যথানাশক ওষুধ হিসেবে কাজ করে থাকে।

টাফনিল ২০০ কোন তৈরি কোম্পানির 

টাফনিল ২০০ এই ওষুধের কোম্পানির নাম হচ্ছে এস কে এফ ( SK-F ) ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেড।

টাফনিল মানুষ কিসের জন্য খায়

এটা আপনি উচ্চ রক্তচাপের মত আক্রান্ত বিভিন্ন রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এমন কি যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা হয়েছে তাদের ক্ষেত্রেও এ টাফনিল ট্যাবলেট ব্যবহার করা হয়। এটি মাইগ্রেন জাতীয় যাবতীয় সমস্যা কে নিরাময় করতে সহায়তা করে। এবং জ্বরের জন্য শরীরে কোন ব্যাথা থাকলে সেটি দূর করতে এ টাফনিল ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও অপারেশন করার পর কাটা ছেঁড়ায় ব্যথাকে নিরাময় করতে এই ওষুধ ব্যবহার করা হয়।

টাফনিল কিসের কাজ করে

টাফনিল কয়েকটা রোগের জন্য ডাক্তার নির্দেশনা দিয়ে থাকে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে --
  • পােস্ট-অপারেটিভ ব্যথা।
  • বিশেষভানে মাইগ্রেন জনিত মাথাব্যথা।
  • বেদনানাশক ও জ্বরে বেদনানাশক কাজে নির্দেশিত।

টাফনিল গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যদান কালে খাওয়া যাবে কিনা

এটা যেহেতু একটি ব্যথানাশক ওষুধ। তাই এই ওষুধ খাওয়ার পূর্বে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ নেবেন। তবে গর্ভাবস্থায় এই ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। এ ওষুধ গ্রহণে আপনার স্বাভাবিকের থেকে অনেকটা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া লক্ষণীয় হতে পারে। অতঃপর যে কোন ওষুধ খাওয়ার পূর্বে একজন রেজিস্টার বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে তারপরে টাপনির ওষুধটি সেবন করবেন।

টাফনিল এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

এ ওষুধের কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে। অতএব এই ওষুধ যারা গ্রহণ করতে চাচ্ছেন অবশ্যই একটু সাবধানতা অবলম্বন করবেন। তবে সাবধানতা অবলম্বন করার জন্য অবশ্যই আপনাকে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আপনাকে জেনে রাখতে হবে। নিচে টাফনিল এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া উল্লেখ করা হলো --
  • কোমা
  • মাথা ঘোরা।
  • মুর্ছা যাওয়া।
  • ঘুম ঘুম ভাব।
  • হায়মাটুরিয়া।
  • খিচুনির সমস্যা।
  • শিহরণ সমস্যা।
  • ডিসপ্যাপসিয়া।
  • কাঁপুনি হতে পারে।
  • কানে ভোঁ ভোঁ শব্দ।
  • ডায়রিয়া হতে পারে।
  • শ্বাসপ্রণালীর সমস্যা।
  • বমি বমি ভাব হতে পারে।
  • ক্ষুধামন্দা দেখা দিতে পারে
  • ক্লান্তি অনুভব হতে পারেন।
  • ক্ষুধামান্দা দেখা যেতে পারে।
  • কাঁপুনি অনুভব হতে পারে।
  • পুরুষদের মধ্যে ডাইসুরিয়া।
  • শ্বাস প্রণালী সমস্যা হতে পারে।
  • আপনার সামান্য মাথা ব্যাথা হতে পারে।
  • কম্পন, উচ্ছ্বাস ইত্যাদি হতে পারে।
টাফনিল ব্যবহারের সুবিধা --
  • এটি দ্রুত কাজ করে।
  • এটি বেশিরভাগ মানুষের জন্য নিরাপদ।
  • এটি অন্যান্য ওষুধের সাথে মিথস্ক্রিয়া করে না।
টাফনিল ব্যবহারের অসুবিধা --
  • এটি অ্যালকোহলের সাথে সেবন করা উচিত নয়।
  • এটি গর্ভবতী এবং স্তন্যদানকারী মায়েদের জন্য নিরাপদ নয়।
  • এটি দীর্ঘ সময় ধরে ব্যবহার করলে পেটের সমস্যা, লিভারের ক্ষতি এবং কিডনির ক্ষতি হতে পারে।

শেষ কথাঃ টাফনিল কোন রোগের ঔষধ

এতক্ষণে নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন, টাফনিল এর সম্পর্কে, তবে টাফনিল মূলত মাথা ব্যথা ভালো করার ওষুধ। কখনো এটাকে নেশা জাতীয় বা ঘুমের ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করবেন না তাহলে আপনার নিজেরই ক্ষতি হবে। মানুষের একটু দৈনন্দিন সমস্যা হচ্ছে মাইগ্রেনের ব্যথা। ছোট-বড় মোটামুটি কমবেশি সবার মাইগ্রেনের সমস্যা দেখা দেয়। আরে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মানুষ অনেক কিছু করে থাকে এমনকি ডাক্তারের শরণাপন্ন হন।

আপনাদের মাইগ্রেনের সমস্যা থেকে দূর করতে পারে টাফনিল ট্যাবলেট সেবন করে। আমরা সম্পূর্ণ তথ্য সঠিকভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করেছি। আশা করছি টাফনিল এর কাজ কি সঠিকভাবে জানতে পেরেছেন। যদি এই পোস্ট পড়ে উপকৃত হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার আশেপাশের ব্যক্তিদের কে এই পোস্ট শেয়ার করে জানিয়ে দিবেন। ধন্যবাদ

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সাহারাব্লগ এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url